×

সাবিত্রী সত্যবান

এই গল্পটি মহাভারত থেকে গৃহীত। এই পটে, মার্কণ্ড্য মুণী যুধিষ্ঠিরকে তাঁর পূর্বজ সত্যবান ও সাবিত্রীর কাহিনী শোনাচ্ছেন। গান যু্ধিষ্ঠির বলেন শুন মার্কণ্ড্য মহামুণি সাবিত্রী সত্যবান কথা বল শুনি অশ্যপতি নামে রাজা অবন্তীর পতি শত্রু নিলো রাজ্য কেড়ে বনে করেন বসতি একদিন সত্যবান যায় খেলিতে নগরে শিশুদের সঙ্গে খেলে আনন্দ অন্তরে হেনকালে সাবিত্রী এলো সেইখানে সত্যবানে […] আরও দেখুন

বেহুলা মনসামঙ্গল

এই পটকাহিনীতে চাঁদ সদাগর ও মনসার কাহিনী বর্ণিত হয়েছে। এইখানে ভারতীয় নারীত্বের এক ধারক-চরিত্র বেহুলার প্রসঙ্গ অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করছে। কাহিনী শুরু হচ্ছে বণিক চাঁদ সদাগরের সঙ্গে সর্পদেবী মনসার দ্বন্দ্ব দিয়ে, এবং কাহিনীর শেষে সেই চাঁদ মনসার একনিষ্ঠ ভক্ত হয়ে উঠছেন। চাঁদসদাগর ছিলেন শিবের উপাসক। কিন্তু মনসাদেবী চাইতেন যে চাঁদ তাঁরও অর্চনা করুক। কিন্তু […] আরও দেখুন

দুর্গা ও গঙ্গা

গঙ্গা শিবের মাথায় থাকেন। সেই নিয়ে তাঁর সতীন দুর্গার ঘোর আপত্তি। সেই থেকে ঘোর বিবাদ। হাস্যকৌতুকের মাধ্যমে এই দুই বিবাদী সতীনের কথোপকথন প্রকাশ করাই এই পটচিত্রের মৌলিক আলেখ্য। গান হর শিবের বিরাজ করে কে ওলো ধনি ও তুই জটার ভিতর কেন লো পা পেলি ও আমি সুরধনী হর শিরে বিরাজ করি আমি সুরধনী ও ধনী […] আরও দেখুন

সত্যপীরের পটের গান

এই পটের মাধ্যমে সুফি সাধক সত্যপীরের নানান কেরামতির কথা প্রকাশ করা হয়। এই আখ্যানে হিন্দু ও ইসলাম ধর্মাবলম্বী সমাজের মধ্যে সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতির বার্তা বহন করা হয়। গান কোথায় আছো সত্যপীর লইলাম শরণ তোমা বিনে কেবা করে লজ্জা নিবারণ হিন্দুপুরে নারায়ণ মুসলমানের পীর দুই কুলে পুজেছ হয়েছ জাহির নামে নাহি লেখাজোখা লম্বা লম্বা কেশ কতদিকে কত […] আরও দেখুন

কৃষ্ণলীলা

কৃষ্ণলীলা পটচিত্রের এক অন্যতম উপবর্গ। এইখানে কৃষ্ণের প্রতি রাধার প্রেম বাঙ্ময় হয়েছে। হাস্যরসাত্মক উপাদানের মাধ্যমে ও খেলার ছলে কৃষ্ণ রাধাকে তাঁর প্রেম নিবেদন স্বীকার করার দিকে এগিয়ে নিয়ে যাচ্ছেন বিভিন্ন সামাজিক বিধিনিষেধের গণ্ডী পেরিয়ে, যার ফলে পূর্ণতা পাচ্ছে তাঁদের দ্বিপাক্ষিক প্রেম। আরও দেখুন

রাবণ বধ

এই কাহিনী আদি মহাকাব্য রামায়ণ থেকে গৃহীত। এই পটচিত্রে রাম দ্বারা রাবণ বধ দেখানো হয়। ভারতজুড়ে রামায়ণের নানান অভিযোজন রয়েছে। যেরকম এই রাবণ-বধ কাহিনীরই নানান বৈকল্পিক সংস্করণ বর্তমান। পটচিত্রে বিধৃত কাহিনী অনুসারে, হনুমান এক ব্রাহ্মণের বেশে রাবণের স্ত্রী মন্দোদরীকে ছলনা করে একটি বিশেষ তীর জোগাড় করেন মন্দোদরীর থেকে এবং সেই তীর রামচন্দ্রক এনে দেন। সেই […] আরও দেখুন

মনসা মঙ্গল

এই পটকাহিনীতে চাঁদ সদাগর ও মনসার কাহিনী বর্ণিত হয়েছে। এইখানে ভারতীয় নারীত্বের এক ধারক-চরিত্র বেহুলার প্রসঙ্গ অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করছে। কাহিনী শুরু হচ্ছে বণিক চাঁদ সদাগরের সঙ্গে সর্পদেবী মনসার দ্বন্দ্য দিয়ে, এবং কাহিনীর শেষে সেই চাঁদ মনসার একনিষ্ঠ ভক্ত হয়ে উঠছেন। চাঁদসদাগর ছিলেন শিবের উপাসক। কিন্তু মনসাদেবী চাইতেন যে চাঁদ তাঁরও অর্চনা করুক। কিন্তু […] আরও দেখুন

কৃষ্ণ রাসলীলা

পটচিত্রের বিভিন্ন কাহিনীগত উপাদানের একটি হল কৃষ্ণলীলা। কৃষ্ণলীলায় রাধা ও কৃষ্ণের প্রেমের ভিত্তিতে কাহিনী নির্মিত হয়। কৃষ্ণ রাধাকে বিভিন্ন হাস্যকৌতুকের মাধ্যমে ও খেলার ছলে তাঁর প্রেম নিবেদন স্বীকার করার দিকে এগিয়ে নিয়ে যাচ্ছেন বিভিন্ন সামাজিক বিধিনিষেধের গণ্ডী পেরিয়ে, যার ফলে পূর্ণতা পাচ্ছে তাঁদের দ্বিপাক্ষিক প্রেম।   আরও দেখুন

সীতা হরণ

এই জনপ্রিয় পটকাহিনী রামায়ণ থেকে গৃহীত। এর মাধ্যমে সীতাহরণ বর্ণিত হচ্ছে। পিতার অনুরোধ রক্ষার্থে রামচন্দ্র সীতা ও লক্ষ্মণের সাথে গৃহত্যাগ করে বনবাসে গেলেন। রাম মায়ামৃগ বধ করলেন। রাবণ সীতাকে হরণ করলেন। গান বিবাহ হলেন রামচন্দ্র হলেন অধিবাস পিতার শর্ত পালিতে রাম যান বনবাস আগে চলে রামচন্দ্র পশ্চাতে জানকি তাহার পশ্চাতে চলে লক্ষ্মণ ধনটি উপরে রবির […] আরও দেখুন

দাতা কর্ণ

মহাকাব্য মহাভারতে অজস্র চরিত্রের সমাহার। তাঁদের মধ্যে অন্যতম হলেন কুন্তীপুত্র কর্ণ। তাঁকে ‘দানবীর’ বলা হয়। তিনি লোকহিতৈষী, দানে অকুণ্ঠহস্ত। এই পটে কর্ণ ও কৃষ্ণের একটি কাহিনী বলা হয়েছে। কৃষ্ণ পরীক্ষা করয়ে চাইলেন কর্ণ যথার্থই দানবীর কি না। তিনি ব্রাহ্মণের বেশে কর্ণের কাছে উপস্থিত হলেন। দান হিসেবে প্রার্থনা করলেন কর্ণের পুত্রকে – তাঁর মাংস খাবেন বলে! […] আরও দেখুন